ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ, রাজশাহী কলেজ

রাজশাহী কলেজ উইকি থেকে
(ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ থেকে পুনর্নির্দেশিত)

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ, রাজশাহী কলেজ কলা অনুষদ এর অধীনে অন্যতম গুরুত্বপূর্ন একটি বিভাগ।

ইতিহাস

রাজশাহী কলেজের অন্যতম একটি বিভাগ ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ। রাজশাহী কলেজে যখন ১৮টি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু ছিলো সে সময়ও ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে অনার্স কোর্স চালু হয়নি। ১৯৫৫ সালে প্রতিথযশা অধ্যক্ষ প্রফেসর শামস-উল-হক এর মহতী উদ্যোগে ১৯৫৫-৫৬ শিক্ষাবর্ষে রাজশাহী কলেজে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে প্রথম অনার্স কোর্স চালু হয়। ১৯৬০ সালে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এ বিষয়ের ওপর অনার্স কোর্স খোলার অজুহাতে রাজশাহী কলেজে অনার্স কোর্স বন্ধ করার অপচেষ্টা গভর্নর আযম খানের হস্তক্ষেপে ব্যর্থ হয়। ১৯০৫ সালে বিভক্ত বঙ্গের পূর্ব বাংলা ও আসাম প্রদেশের প্রথম গভর্নর ব্যামফিল্ড ফুলার প্রতিষ্ঠিত ফুলার ভবনের উত্তর অংশে এ বিভাগ চালু হওয়ার পর থেকে অদ্যাবধি সগৌরবে ঐতিহ্য বহন করে চলছে।

এ বিভাগের শুরু থেকে কয়েকজন প্রতিথযশা নিবেদিতপ্রাণ অধ্যাপক তাঁদের নিরলস প্রচেষ্টায় ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগকে করেছেন গৌরবান্বিত। বিভাগ চালুর সময় বিভাগীয় প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন স্বনামধন্য অধ্যাপক সাইয়েদ আজিজুর রহমান হাশমী। ছেলেমেয়েদের উৎসাহ দান করে বিভাগের প্রতি আকর্ষণ সৃষ্টি করার অসামান্য ভূমিকা রেখেছিলেন তিনি। তাঁর সময়ে বিভাগের আর একজন খ্যাতনামা শিক্ষক ছিলেন প-িতখ্যাত ব্যক্তিত্ব জনাব মুখলেসুর রহমান, যিনি পরবর্তীতে রাজশাহী বরেন্দ্র গবেষণা যাদুঘরের কিউরেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এ বিভাগে আর একজন স্বনামধন্য বিভাগীয় প্রধান ছিলেন ড. এম. শামসুদ্দীন মিয়া- যিনি পরবর্তীকালে রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ ও রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বিভাগের আরও একজন খ্যাতনামা শিক্ষক ছিলেন জনাব মুহ: সগীর উদ্দীন মিঞা- যিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ-সংশ্লিষ্ট একটি বংশানুপঞ্জি তৈরি করেছেন- যা শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও জ্ঞানপিপাসুদের পিপাসা মেটাতে বহুলাংশে সক্ষম। অতি সম্প্রতি আরও দু জন বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর মো: আব্দুল করিম ও প্রফেসর মো: ওয়াজেদ আলী এ বিভাগ থেকে অবসরগ্রহণ করেছেন, যাঁরা শিক্ষাবিদ ও সমাজহিতৈষী ব্যক্তি হিসেবে খ্যাত। বিভাগে তাঁদের অবদানও অনস্বীকার্য।

অবকাঠামো

ফুলার ভবনটি কলেজের দক্ষিণাংশে হওয়ায় অনতিদূরে প্রমত্তা পদ্মার তীর ঘেষে এর অবস্থান। ভবনের নির্মাণশৈলী, মনোলোভা রং এবং স্থাপত্যিক বৈশিষ্ট্য অনন্য। এ বিভাগ তথা ভবনের সামনে বিস্তৃত খেলার মাঠ। ফলে সকালের প্রথম সূর্যোদয় তার আলোর পরশ দিয়ে বরণ করে নেয় এ ভবনকে।

সাফল্য

বিভাগ চালু হওয়ার পর থেকে আজ পর্যন্ত বহু জ্ঞানী ও প্রজ্ঞাবান শিক্ষার্থী জ্ঞানার্জন করে স্ব-স্ব অবস্থান থেকে সমাজ, দেশ তথা জাতিকে করেছেন ধন্য। উদাহরণস্বরূপ উল্লেখ করা যেতে পারে, ১৯৬৩ সালে অনার্স পরীক্ষায় ১ম শ্রেণিতে ১ম স্থান অধিকার করে সুলতানা আজুবা রাজশাহী কলেজকে যেমন করেছেন ধন্য, তেমনি বিভাগকেও করেছেন গৌরাবান্বিত। পরবর্তীকালে তিনি সরকারি কলেজে অধ্যাপনার দায়িত্ব পালন করে বর্তমানে অবসর জীবন যাপন করছেন। অনুরূপভাবে নাম না জানা অনেক শিক্ষার্থী এ বিভাগ থেকে জ্ঞানে সিক্ত হয়ে সমাজ, দেশ ও জাতির সেবায় নিয়োজিত থেকে বিভাগকে করেছেন ধন্য।

সচল কোর্স সমূহ

রাজশাহী কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ শুরু থেকে আজ পর্যন্ত নিরলসভাবে জ্ঞানের প্রদীপ শিখা জ্বালিয়ে জাতীয় জীবনে সামান্য হলেও আঁধার কাটিয়ে সমাজকে আলোকোজ্জ্বল করার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। এ বিভাগে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীর সংখ্যা আজ প্রায় ২৫০০ জন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই এ কলেজে এম.এ প্রথম ও শেষ পর্ব কোর্স চালু আছে। ২০০৮ সালে ১৪ জন ও ২০০৯ সালে ৩৬ জন, ২০১০ সালে ৩৪ জন ২০১১ সালে ৪৪জন শিক্ষার্থী এম.এ ফাইনাল পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয় এ বিভাগ থেকে। আরও উল্লেখ্য, ২০১০ সালে অনার্স ফাইনাল পরীক্ষায় একজন ২০১১ সালে ৯ জন শিক্ষার্থী এ বিভাগ থেকে প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। বর্তমানে বিভাগে শিক্ষকের পদসংখ্যা- ১২।

কার্যক্রম

বিভাগীয় প্রধান

প্রফেসর. নারগিস জাহান

বর্তমান শিক্ষকবৃন্দ

ক্র. নাম উপাধী যোগদানের তারিখ

আরো দেখুন

বহিঃসংযোগ